Saturday, 23 May 2020

ক্ষুধা এবং ভালোবাসার গল্প-আনিসুল হক



দীর্ঘ পাঁচমাস পর ঈদকে সামনে রেখে বাড়ি ফিরছে আবুল হোসেন, স্ত্রীর জন্য শাড়ি, ছেলেমেয়েদের জন্য খেলনা নিয়ে। উত্তরবঙ্গের ব্রহ্মপুত্রের চরে তার বাড়ি। কিন্তু রাস্তায় প্রচন্ড জ্যাম আর নানান প্রতিকূলতায় শেষ পর্যন্ত রাস্তাতেই ঈদের নামাজ পড়তে হয় তাকে। উৎকন্ঠা আর উদ্বেগে অশান্ত হয়ে ওঠে আবুল হোসেনের মন, বাড়ি ফিরে সবাইকে জীবিত দেখতে পাবে কি সে? না-কি না খেতে পেয়ে ধুকে ধুকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে তার হৃদয়ের পুত্তলিগুলো?

শেষ পর্যন্ত বাড়ি ফেরে আবুল হোসেন এবং দেখতে পায় সকলেই সুস্থ্য আছে। এক অনাবিল শান্তির পরশ বুলিয়ে যায় তার সমগ্র দেহমনে। স্ত্রীকে আদরে আদরে ভরিয়ে দেয় সে। ছেলেমেয়েগুলো বাবাকে পাওয়ার সাথে সাথে কিছু খেলনা পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়ে। তারপরই হঠাৎ সে আবিষ্কার করে তার স্ত্রী তিন মাসের অন্তসত্ত্বা। মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়ে আবুল হোসেনের। অথচ ভালোবেসেই তাঁরা বিয়ে করেছিল। কি নিবিড় ভালোবাসা আর গভীর বিশ্বাস ছিল তাদের মনে। মুহূর্তেই আবুল হোসেন হারিয়ে যায় অতীতে। ভয়ংকর এক বন্যার সময় এই চরেরই আশ্রয়কেন্দ্রে পরিচয় হয়েছিল সোনাবানুর সাথে। প্রথম দেখাতেই মুগ্ধ হয়েছিল আবুল হোসেন। সোনাবানুও আবুল হোসেনের গানে মজেছিল। তারপর নানা বাধাবিপত্তি আর প্রতিকূলতাকে জয় করে ঘর বেঁধেছিল আবুল হোসেন আর সোনাবানু। তাদের প্রেম কাহিনী দীর্ঘদিন চরের মানুষের কাছে উপন্যাসের কাহিনীর মত ছিল। এখনও কোন কপত-কপতীকে দেখলে মানুষ বলে, “আহা! যেন আবুল হোসেন আর সোনাবানু।”
তাহলে কি ঘটল সেই সোনাবানু আর আবুল হোসেনের মাঝে? পাঁচমাস পূর্বে আবুল হোসেন যখন মাত্র ১৮ টাকা সোনাবানুর হাতে দিয়ে পাড়ি জমিয়েছিল ঢাকার উদ্দেশ্য তারপর কিভাবে কেটেছে সোনাবানু আর দুই ছেলেমেয়ের জীবন? আদরের সন্তানদের মুখে দু-মুঠো ভাত তুলে দিতে গিয়ে কি পরিমাণ কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে সোনাবানুকে তার খবর কি জানতে চেয়েছ আবুল হোসেন? মংগা কবলিত চরের মানুষের জীবনের অসাধারণ সংগ্রামের কাহিনীতেই আছে এই প্রশ্নের জবাব।  
আনিসুল হকে চমৎকার লেখনীতে সুনিপুনভাবে চিত্রিত হয়েছে প্রতিটি চরিত্র। আবুল হোসেন এবং সোনাবানু চরের মানুষের সংগ্রামী সত্তা আর চিরন্তন ভালোবাসারই প্রতিনিধিত্ত্ব করে। “ক্ষুধা এবং ভালোবাসার গল্প” ভালোবাসারই বিজয়গাঁথা তাইতো দেখতে পাই যখন সোনাবানু স্বীকার করে যে প্রিয় সন্তানদের মুখে এক-মুঠো ভাত তুলে দিতে মাত্র পাঁচ কেজি চালের বিনিময়ে দোকানদার বারিকের কূপ্রস্তাবে রাজি হওয়া ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না, তখন আবুল হোসেন অশ্রুভেজা চোখে সোনাবানুর দিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলে, “এটা তুমি কি করলে সোনাবানু, আর কোন উপায় কি খুঁজে পেলে না?”। আর পরক্ষণেই সে সোনাবানুকে বুকে জড়িয়ে ধরে। সোনাবানুর বুক থেকেও মুছে যায় সকল বেদনা। সবশেষে এক অনন্য ভালোবাসার গল্প হিসাবে হৃদয়ে দাগ কাটে “ক্ষুধা ও ভালোবাসার গল্প”। যেকোন সহৃদয় পাঠকের ভালো না লেগে উপায় নেই উপন্যাসটি।  

No comments:

Post a Comment